প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক আর নেই

0
7

পান্না, রাজশাহী ব্যুরো :

প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক ইন্তেকাল করিয়াছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। সোমবার (১৫ নভেম্বর) রাত সোয়া ৯টার দিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক এলাকায় নিজ বাসায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক মলয় কুমার ভৌমিক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মৃত্যু কালে হাসান আজিজুল হকের বয়স হয়েছিল ৮২ বছর। তিন কন্যা ও এক পুত্র সন্তানের জনক তিনি। গুণী এই কথাসাহিত্যিকের মৃত্যুর সংবাদে তার বাসায় পৌঁছেছেন স্বজন ও শুভাকাঙ্খীরা।

বার্ধক্যজনিত সমস্যা ছাড়াও হৃদরোগ, ডায়াবেটিস এবং হাইপোন্যাট্রিমিয়ায় ভুগছিলেন তিনি। সম্প্রতি তিনি একেবারে নিস্তেজ হয়ে পড়েন। চিন্তা ও স্মৃতিশক্তি কমে যায়।

গত ২১ আগস্ট উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকায় নেওয়া হয়। একটানা ১৯ দিন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসার পর ১০ সেপ্টেম্বর নিজ বাসায় ফেরেন। সেখানেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন গুণী এই কথাসাহিত্যিক।

১৯৩৯ সালের ২ ফেব্রæয়ারি ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার যবগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন হাসান আজিজুল হক। তিনি ১৯৭৩ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগে অধ্যাপক হিসেবে যোগদান করেন। ২০০৪ সাল পর্যন্ত সেখানে তিনি অধ্যাপনা করেন।

হাসান আজিজুল হকের সাহিত্যচর্চার হাতেকড়ি কৈশরেই। কাশীশ্বরী উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণিতে অধ্যয়নরত অবস্থায় বিদ্যালয়ে রাজা সৌমেন্দ্র চন্দ্র নন্দী আগমন উপলক্ষ্যে সম্বর্ধনাপত্র রচনার করেন। প্রবেশিকা পাশের পরপরই তিনি লেখেন উপন্যাস ‘মাটি ও মানুষ’। সেটি অপ্রকাশিতই থেকে যায়।

তবে লেখক হিসেবে তিনি সবার দৃষ্টি কাড়েন ১৯৬০ সালের দিকে। ওই সময় সিকান্দার আবু জাফর সম্পাদিত সমকাল পত্রিকায় তার ‘শকুন’ গল্প প্রকাশ হয়। এর আগে ১৯৫৬ সালে নাসির উদ্দিন আহমেদ সম্পাদিত ‘মুকুল’ পত্রিকায় প্রকাশ হয় গল্প ‘মাটি ও পাহাড়’। এছাড়া বিএল কলেজবার্ষিকীতে ছোটোগল্প ‘লাঠি’ এবং কবিতা ‘সাগর পারের পাখিরা’ প্রকাশ পায়।

এ সময় ‘পাষাণ বেদী’ নামে একটি গল্পও প্রকাশ পেয়েছিল অন্য একটি কলেজবার্ষিকীতে। সাহিত্যচর্চার প্রথম দিকে হাসান আজিজুল হক কবিতা রচনায়ও আগ্রহী হয়েছিলেন। ‘বিনতা রায় : আমি’, ‘নিরর্থক’, ‘গ্রামে এলাম’, ‘দিনাবসান’, ‘কথা থাক’, ‘রবীন্দ্রনাথ’ প্রভৃতি কবিতা তিনি ১৯৫৭ সালে রচনা করেছিলেন।

তিনি ১৯৫৭ সালে ‘শামুক’ উপন্যাস রচনা করে মানিক স্মৃতি উপন্যাস প্রতিযোগিতায় অংশ নেন। ওই সময় ‘শামুক’ উপন্যাসের আংশিক প্রকাশিত হয়েছিল।

১৯৬০ সালে রাজশাহী থেকে প্রকাশিত পূর্বমেঘ ত্রৈমাসিক পত্রিকায় ‘একজন চরিত্রহীনের স্বপক্ষে’ গল্প প্রকাশ পায়। এটিই তাকে ব্যাতিক্রমী কথাশিল্পীর পরিচয় এনে দেয়। এরপর থেকেই দেশের প্রায় সব পত্রপত্রিকায় তার লেখা প্রকাশ পেতে থাকে।

তার লেখা উল্লেখযোগ্য গল্পগ্রন্থ ‘সমুদ্রের স্বপ্ন শীতের অরণ্য (১৯৬৪), আত্মজা ও একটি করবী গাছ (১৯৬৭), জীবন ঘষে আগুন (১৯৭৩), নামহীন গোত্রহীন (১৯৭৫), পাতালে হাসপাতালে, বিধবাদের কথা ও অন্যান্য গল্প (২০০৭) প্রভৃতি।

তার লেখা ‘আগুনপাখি’ উপন্যাসটি প্রকাশিত হয় ২০০৬ সালে। এই উপন্যাসটি প্রথম আলো বর্ষসেরা বইয়ের স্বীকৃতি লাভ করে। এ উপন্যাসের জন্য তিনি ২০০৮ সালে কলকাতা থেকে আনন্দ সাহিত্য পুরস্কার লাভ করেন।

তার দ্বিতীয় উপন্যাস ‘সাবিত্রী উপাখ্যান’ ২০১৩ সালে এবং তৃতীয় উপন্যাস ‘শামুক’ ২০১৫ সালে প্রকাশিত হয়। ‘শিউলি’ নামে আরও একটি ছোট উপন্যাস তিনি লিখেছেন। এছাড়াও কবিতা, নাটক, শিশু সাহিত্যসহ স্মৃতিকথাও রচনা করেছেন তিনি।

হাসান আজিজুল হক ১৯৬৭ খ্রিষ্টাব্দে আদমজী সাহিত্য পুরস্কার এবং ১৯৭০ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার লাভ করেন। ১৯৯৯ সালে তিনি একুশে পদকে ভূষিত হন। ২০১২ সালে তিনি আসাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এবং ২০১৮ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মানসূচক ডি-লিট ডিগ্রি পান। ২০১৯ সালে তাকে স্বাধীনতা পুরস্কার দেওয়া হয়।

এছাড়াও বাংলাদেশ লেখক শিবির পুরস্কার (১৯৭৩), অলক্ত সাহিত্য পুরস্কার (১৯৮১), আলাওল সাহিত্য পুরস্কার (১৯৮৩), অগ্রণী ব্যাংক সাহিত্য পুরস্কার (১৯৮৪), ফিলিপস সাহিত্য পুরস্কারসহ (১৯৮৮) বহু পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন হাসান আজিজুল হক।