বাঘায় টাকা নিয়ে শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেণ্ট গ্রহণের অভিযোগ

0
168

বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি:
রাজশাহীর বাঘায় টাকার বিনিময়ে শিক্ষার্থীদের কাছে থেকে অ্যাসাইনমেণ্ট গ্রহণের অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনার প্রতিকার চেয়ে মঙ্গলবার (৩১ আগষ্ট) সপ্তম শ্রেণিতে পড়–য়া এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক বাদি হয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসারের নিকট লিখিত অভিযোগ করেন।
একই সাথে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা রাজশাহী অঞ্চলের উপ-পরিচাকের দপ্তরে অভিযোগের অনুলিপি দেয়া হয়েছে। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহয়িার আলম এমপি বরাবরও অভিযোগটি দেয়া হয়েছে।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মশিদপুর গ্রামের মিজানুর রহমান পেশায় একজন সাধারণ কৃষক। তার ছেলে হাসানুর রহমান দিনার ইসলামী একাডেমী স্কুল এণ্ড কলেজের (কারিগরী ও কৃষি) সপ্তম শ্রেণির ছাত্র। করোনাকালীন এই দুর্যোগের মধ্যে তার ছেলে ১৩ তম সপ্তাহের অ্যাসাইনমেণ্ট জমা দিতে মঙ্গলবার প্রতিষ্ঠানে যায়। এ সময় বেতন, সেশন চার্জ, স্কাউট ফি, বিদ্যুৎ ও আইসিটি খরচ বাবদ ৬৫৫ টাকা জমা দিতে বলা হয়। অন্যথায় অ্যাসাইনমেণ্ট গ্রহণ করা যাবে না। পরে অন্যের নিকট থেকে টাকা নিয়ে তা পরিশোধ করে অ্যাসাইনমেণ্ট জমা দেয়া হয়।
এ বিষয়ে ইসলামী একাডেমী স্কুল এণ্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক আব্দুল হামিদ বলেন, প্রতিষ্টান যে টাকা নিচ্ছে তা বিধিমোতাবেক রশিদের মাধ্যমে। শিক্ষার্থীদের কাছে থেকে অ্যাসাইনমেণ্ট বাবদ কোন টাকা নেয়া হচ্ছে না।
ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সিরাজুল ইসলাম মণ্টু বলেন, সরকারী নির্দেশনায় বিধিমোতাবেক বেতনসহ অন্যন্য টাকা নেয়া হচ্ছে। অ্যাসাইনমেণ্ট বাবদ টাকা নেয়া ভিক্তিহীন। প্রতিহিংসায় কেউ অভিযোগ করতে পারে।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের একাডেমিক সুপারভাইজার মাহমুদুল হাসান জানান, এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগটি তদন্ত করা হবে।
উপজেলা শিক্ষা অফিসার আবুল কাশেম ওবাইদ বলেন, করোনাকালীন সময়ে সেশন চার্জ, মাসিক বেতন ফ্লেক্সিবুল ভাবে রশিদের মাধ্যমে নিতে পারবে। আ্যাসাইনমেন্ট বাবদ কোন টাকা নিতে পারবে না।