কলেজছাত্রী অপহরণ মামলায় ছাত্রলীগের সভাপতি গ্রেফতার

0
9
নিজস্ব প্রতিবেদকঃ 
রাজশাহীর মোহনপুরে কলেজছাত্রী অপহরণ মামলায় জেলা মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ ও মোহনপুর উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আবদুর রাজ্জাক (২৬) ও তার বাবা ছলিমুদ্দিনকে (৫০) গ্রেপ্তার করেছে মোহনপুর থানা পুলিশ।
মোহনপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মোস্তাক আহম্মেদ জানান, সহকারী পুলিশ পরিদর্শক রাসেল কবির ও সহকারী উপ-পুলিশ পরিদর্শক রাশিদুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল অভিযান চালিয়ে রাত ১২টার দিকে রাজশাহী মহানগরীর বালিয়া পুকুর এলাকার একটি বাড়ী থেকে আব্দুর রাজ্জাককে গ্রেপ্তার করা হয়।এ সময় ওই বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ওই কলেজছাত্রীকে।উদ্ধারের পর কলেজছাত্রীর শারিরীক পরীক্ষার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে।এর আগে রাত ৮টার দিকে নিজ বাড়ি থেকে রাজ্জাকের বাবা ছলিমুদ্দিনকে গ্রেপ্তার করা হয়।
মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহী কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রওজাতুল আফরোজ লিজাকে বিভিন্ন সময় প্রেম নিবেদনসহ কু-প্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন মোহনপুর উপজেলা শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক। লিজা প্রস্তাবে রাজি না হয়ে বিষয়টি তার পরিবারকে জানায়। এরপর লিজার বড় ভাই দেলোয়ার হোসেন সম্রাট ওই ছাত্রলীগ নেতাকে এমনটা করতে নিষেধ করেন ও তার বাবা ছলিমুদ্দীনকে বিষয়টি জানান।
এজাহারে উল্লেখ করা হয়, লিজার চাচা মোহাম্মদ আলী বৃহস্পতিবার সকালে গ্রামের বাড়ি থেকে রাজশাহী শহরের বাড়িতে ফিরছিলেন। গ্রামের বাড়ির অদূরে পথেই আব্দুর রাজ্জাক লিজাকে বিয়ের জন্য প্রস্তাব দেন। এসময় লিজাকে জোরপূর্বক সাদা রংয়ের একটি মাইক্রোতে তুলে নিয়ে যান।তার সঙ্গে রায়হান নামে স্থানীয় আরেক যুবক ছিলেন।তবে এমামলার তিন নম্বর আসামি রায়হান এখনো পলাতক রয়েছেন।
এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (৬ আগস্ট) রাতে ছাত্রীর বড় ভাই বাদী হয়ে ৩ জনকে আসামী করে মোহনপুর থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেছেন। অভিযোগ পেয়ে মোহনপুর থানা পুলিশ প্রথমে তার বাবা ছলিমুদ্দিন (৫০) গ্রেপ্তার করে। পরে বাবার দেয়া তথ্যে আব্দুর রাজ্জাককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাদের বাড়ী উপজেলার কেশরহাট পৌরসভা এলাকার ফুলশো গ্রামে।
এবিষয়ে মোহনপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাক আহমেদ জানান, এ মামলার প্রধান আসামি ও তারবাবাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।