পাবনা দুলাই আ. লীগের সভাপতি বাচ্চু মোল্লার বিরুদ্ধে আর্থিক প্রতারণার অভিযোগ

0
697

পাবনা প্রতিনিধি: পাবনা সুজানগর উপজেলা দুলাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পাবনা জেলা পরিষদ নির্বাচনে সুজানগর উপজেলা থেকে সদস্য পদপ্রার্থী রেজাউল করিম বাচ্চু মোল্লার বিরুদ্ধে একাধিক প্রতারণার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ক্ষমতাসীন দলের নাম ভাঙ্গিয়ে এবং সাবেক এমপি আজিজুল হক আরজুর নাম ভাঙ্গিয়ে চাকুরি দেবার নাম করে, সালিশে মিমাংসা ও থানায় মামলা ঠেকানোর জন্য তিনি ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে প্রায় ৭০ লক্ষ টাকা টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।
অভিযোগসূত্রে জানা যায়, আওয়ামী লীগ নেতা রেজাউল করিম বাচ্চু মোল্লা সুজানগর উপজেলা বামুন্দি গ্রামের দায়েন মোল্লার দুই ছেলের চাকরি দেবার কথা বলে ৩৮ লাখ, একই গ্রামের শুকুর জোয়াদ্দারের ছেলে শরিফুলকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রহরীর চাকরি দেয়ার জন্য ৮ লাখ, মানিকহাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শফিউল ইসলামের একটি কাজ বাবদ ৬ লাখ, সাঁথিয়া উপজেলার মো. সাঈদকে ব্যাংকে চাকরি দেবার কথা বলে ৬ লাখ, সাতবাড়িয়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দয়ালের কাছ থেকে তার এক নিকট আত্বিয়র চাকরি দেবার কথা বলে ১০ লাখ, হাটখালী মুদি ব্যবসায়ী মনিরের একটি সালিশ মিমাংসা করে দেয়ার কথা বলে ৫০ হাজার টাকাসহ অসংখ্যা ব্যক্তিকে চাকুরি ও সালিশ মিমাংসা করে দেয়ার কথা বলে বিপুল পরিমান টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। ভুক্তভোগীরা তাকে কল দিলেও তিনি তাদের মোবাইল কল রিসিভ করেন না।
সালিশ মিমাংসা করে দেয়ার কথা বলে অর্থ হাতিয়ে নিলেও বাদী পক্ষকে টাকা না দেওয়ায় বিবাদী পক্ষকে মামলা দিয়ে হয়রানি, জেল খাটানো এবং আদালতে প্রতিমাসে হাজিরা দিতে হচ্ছে ভুক্তভোগী সাধারণ মানুষকে।

ক্ষমতাসীন দলের নাম ভাঙ্গিয়ে এবং সাবেক এমপি আজিজুল হক আরজুর নাম ভাঙ্গিয়ে ৭/৮ বছর আগে চাকরি দেবার নাম করে, সালিশ মিমাংসার ও থানা সামলানোর কথা বলে একাধিক ব্যক্তির কাছ থেকে প্রায় পৌঁনে ১ কোটি টাকা আত্মসাত এখন সুজানগরে সমালোচনার সৃষ্টি করেছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক আওয়ামীলীগ নেতা জানান, ঐতিহ্যবাহী ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নাম ভাঙ্গিয়ে দুলাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি রেজাউল করিম বাচ্চু মোল্লার অনৈতিক কর্মকান্ড দলের মধ্যে বিব্রতকর ও লজ্জাকর অবস্থা তৈরি করেছে। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে দলের ভাবমূর্তি নষ্ট হবে। ইতিমধ্যে অনেকে জেলা পরিষদ নির্বাচনে সুজানগর উপজেলা থেকে সদস্য পদপ্রার্থী প্রতারক রেজাউল করিম বাচ্চু মোল্লাকে বয়কট করার কথা বলেছেন।

এ বিষয়ে রেজাউল করিম বাচ্চু মোল্লার মোবাইলে কল করলে তার মোবাইল বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।