রাজশাহীতে আ.লীগ নেতার বাড়িতে গুলাগুলি, বিপুল আগ্নেয়াস্ত্র অস্ত্র উদ্ধার গ্রেফতার ২

0
51

পান্না, রাজশাহী ব্যুরো :
রাজশাহী মহানগরীর বোয়ালিয়া (পূর্ব) থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও রাজশাহী সিটি হাটের ইজারাদার আতিকুর রহমান কালুর বাড়ীতে কয়েক রাউন্ড গুলি ছুড়ে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। রবিবার রাত্রি দুইটার সময় এই ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে বেশ কিছু আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করেছে।

আগ্নেয়াস্ত্র মধ্যে রয়েছে দুইটি সর্টগান, একটি পিস্তল, তিনটি ম্যগজিন ও শতাধিক রাউন্ড গুলিসহ দুই জনকে আটক করেছে বোয়ালিয়া মডেল থানা পুলিশ। এসময় সন্ত্রাসীদের বহনের কাজে ব্যাবহৃত কালো রংএর প্রাইভেট কারও জব্দ করা হয়। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন নগরীর বোয়ালিয়া থানার ওসি মাজহারুল ইসলাম।

তিনি জানান, গতকাল রাত দুইটার দিকে রাজশাহী মহানগরীর বোয়ালিয়া (পূর্ব) থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও রাজশাহী সিটি হাটের ইজারাদার আতিকুর রহমান কালুর বাড়ীতে তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে কয়েক রাউন্ড গুলি ছুড়ে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। ঘটনার দুই ঘন্টার আগ্নেয়াস্ত্রসহ দুই জনকে আটক করেছে বোয়ালিয়া মডেল থানা পুলিশ। এসময় সন্ত্রাসীদের বহনের কাজে ব্যাবহৃত কালো রংএর প্রাইভেট কারও জব্দ করা হয়।
আটক দুজন হলেন, প্রাইম ব্যাংকের সাবেক পরিচালক ওয়াহিদ জামিল মুরাদ ও তার ব্যক্তিগত সহকারী জাহিদ আলম সম্রাট।

একাধিক সূত্র জানায়, আওয়ামী লীগ নেতা আতিকুর রহমান কালুর নিকট থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা পাবেন ওয়াহিদ জামিল। ওই টাকা দিতে গড়ি-মশি করছিলেন কালু। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওয়াহিদ জামিল রাতে কালুর বাড়িতে রাগে গিয়ে গুলি ছুড়েন।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগ নেতা আতিকুর রহমান কালুর দাবি আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে গুলি ছোড়ে জামিল ওয়াহিদ মুরাদ। আমি তাদেরকে চেনি না। এমনকি মুরাদও আমাকে চেনেন না। আমার বাড়িতে এসে আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে গুলি ছুড়লেও তিনি আমাকে কেন হত্যা করতে এসেছিলেন সেটা জানি না। জামিল ওয়াহিদ আমার সঙ্গে কথার বলার সময়ও আমাকে চিনতে পারেননি। পরে আমি পরিচয় দেওয়ামাত্র তিনি আমাকে হত্যার জন্য আবারও গুলি ছুড়েন। সেই গুলি গিয়ে লাগে বাড়ির দরজায়। আমি অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেছি।