রাজশাহীর বাঘায় নাতির জন্য নানা অপরাধী : মানবতা লঙ্ঘিত

0
47

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ রাজশাহীর বাঘায় ৮ বছরের শিশু নাতির অপরাধে শালিসে বৃদ্ধ নানা ছিদ্দিক ব্যাপারী (৬৩) এর ১০ হাজার টাকা জরিমানা, ব্যাপক মারপিট ও কানধরে উঠবস করানো হয়েছে। মঙ্গলবার (২৮ জুন) অপমানিত বৃদ্ধ নানা ছিদ্দিক ব্যাপারি বাঘা থানায় লিখিত অভিযোগ করেন ।
উপজেলার পদ্মার মধ্যে চকরাজাপুর ইউনিয়নের দাদপুর চরের বাসিন্দা সিদ্দিক বেপারী বলেন, আমার পিতৃহারা এতিম নাতি রাকিবুল ইসলাম (৮) চকরাজাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেনীতে লেখাপড়া করে। গত ২৬ জুন ২০২২ রোজ রবিবার সকাল ১১.০০ টার সময় বিদ্যালয় সংলগ্ন স্বপন পিতা সিদ্দিক এর বাড়ীর একটি ঘরে রাখা নগদ টাকা দেখে লোভে পড়ে কিছু টাকা নিয়ে আসে। কিছুক্ষনের মধ্যেই স্বপনের স্ত্রী ঘরে টাকা না পেয়ে রাকিবুল কে খোঁজ করতে বিদ্যালয়ে আসে এবং স্থানীয় লোকদের সহায়তায় ওই টাকা রকিবুল ইসলামের কাছে উদ্ধার করে।


পরবর্তিতে এ বিষয়ে চকরাজাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের কাছে স্বপন আলী অভিযোগ করেন । সোমবার (২৭ জুন) বিকালে ওই ঘটনায় ইউনিয়ন পরিষদে শালিসের আয়োজন করে। চকরাজাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ডি.এম. মনোয়ার হোসেন বাবুল দেওয়ানের সভাপতিত্বে ১১ জন ইউপি সদস্য ও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে শালিসে স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র পিতৃহারা এতিম রফিকুল ইসলামকে দোষী প্রমান করে এবং তার নানা ছিদ্দিক ব্যাপারীকে (৬৩) কিলঘুষি, কানধরে উঠবস করিয়ে ১০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করে সংশ্লিষ্ট শারিশবর্গ । বিষয়টা নিয়ে এলাকায় কানাকানি শুরু হলে, এ বিষয় নিয়ে ছিদ্দিক ব্যাপারি মনে করে, শালিসে তাকে অন্যায়ভাবে অপমানিত করা হয়েছে। এধরনের অন্যায়ভাবে এলাকার প্রভাবশালীগন আমার উপর জুলুম করেছে মনে করে মঙ্গলবার (২৮ জুন) বাঘা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি।

এ বিষয়ে চকরাজাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ডি এম মনোয়ার হোসেন বাবুল দেওয়ান বলেন, ছিদ্দিক ব্যাপারিকে মারধর ও কান ধরে উঠবস করানো মতো কোন ঘটনা ঘটেনি। স্বপন আলীর দোকানে যে টাকা চুরি হয়েছিল। সেই টাকা তার কাছে থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।
গণ প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত গণমাধ্যম ও মানাবধিকার সংগঠন ন্যাশনাল প্রেস সোসাইটি (এনপিএস) এর কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আখতার রহমানের মতে, অপরাধীকে আইনে সোপর্দ না করে নির্যাতন করে আইনের ব্যত্যয় ঘটিয়েছে এবং সেই সাথে মানবাধিকার লঙ্ঘন করা হয়েছে।
বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বলেন, এই বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।