মঙ্গলবার, অক্টোবর ৪, ২০২২
বাড়ি প্রচ্ছদ

ভিকটিম স্কুল ছাত্রী  উদ্ধার এবং অপহরণকারী আসামী  গ্রেফতার

0

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

১। আপনারা অবগত আছেন যে, র‌্যাব এর নিয়মিত অভিযানের অংশ হিসেবে র‌্যাব-৫ বিভিন্ন সময় অপহরণকারী আসামী ও ভিকটিম উদ্ধার অভিযান পরিচালনা সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন মামলার আসামী গ্রেফতার  করে থাকে। র‌্যাব-৫, সদর কোম্পানী গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারে যে, রাজশাহী জেলার  দূর্গাপুর থানার মামলা নং- ০৫/১৫৭ তাং- ০৭/০৯/২২ ইং ধারা- নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন- ২০০০( সং/০৩) এর- ৭/৩০ মামলার ১নং আসামী মাহাফুজ ৥ অভি(২৫), ২নং আসামী মোঃ বিয়ানুছ আলী(৫৬), ৩নং আসামী মহসীনা বেগম(৪০)অত্র মামলার ভিকটিম স্কুল ছাত্রী মোছাঃ ইফফাত  আরা তিন্নী(১৫)কে অপহরণ করিয়া ফেনী জেলার ছাগলনাইয়া থানাধীন বাংলাবাজারস্থ স্থানে অবস্থান করিতেছিল। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৫ এর সদর কোম্পানীর একটি  চৌকস আভিযানিক দল ০৩/১০/২২ ইং তারিখ অভিযান পরিচালনা করে বেলা-১২.৩০ ঘটিকার সময় ফেনী জেলার ছাগলনাইয়া থানাধীন বাংলাবাজারস্থ এলাকা থেকে অপহরণ মামলার এজাহার নামীয়  আসামী ১। মোঃ  মাহাফুজ ৥ অভি(২৫), ৩নং আসামী  মহসীনা বেগম(৪০), দ্বয়কে আটক করে । তাহাদের নিকট হইতে সূত্রে বর্ণিত মামলার ভিকটিম স্কুল ছাত্রী মোছাঃ ইফফাত  আরা তিন্নী(১৫)কে উদ্ধার করে।

২। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের উক্ত আসামীদ্বয় আসামীদ্বয়কে  অত্র মামলা সংক্রান্তে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে উক্ত মামলার ঘটনায় তারা  জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।

৩। গ্রেফতারকৃত উক্ত আসামীদ্বয়কে  এবং ভিকটিম স্কুল ছাত্রী মোছাঃ ইফফাত  আরা তিন্নী(১৫)কে আইনগত  ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য দূগাপুর থানা, রাজশাহীতে হস্তান্তর করার জন্য রওনা করা হয়েছে।

উল্লাপাড়ায় মহা অষ্টমী ও কুমারী পূজা অনুষ্ঠিত,মণ্ডপে প্রতিমা দর্শনে ভক্তদের পদভার

0
রাজু আহমেদ সাহান – উল্লাপাড়া (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি : সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় শারদীয় দুর্গোৎসবের মহা অষ্টমীর পূজা প্রতি বছরের মতো এবারও মহা ধুমধামে ও ব্যাপক আনন্দ উৎসাহের মধ্যদিয়ে শেষ হয়েছে। মহা অষ্টমীতে অনুষ্ঠিত হলো কুমারী পূজা। সোমবার সকাল ৯ টা থেকে পৌর শহরের কলেজপাড়া মিলন মন্দিরে শুরু হয় কুমারী পূজা। প্রায় মন্দিরেই একই সময়ে অনুষ্ঠিত হয় এই পূজা। এ সময় ভক্তদের পদযাত্রায় মুখরিত হয় পূজা অঙ্গন। কুমারী পূজায় মন্দিরে আগত শিশুদের মধ্যে চিপস্ ও চকলেট বিতরণে ব্যতিক্রম আয়োজন করে কমিটি।দুর্গাপূজার অন্যতম বৈশিষ্ট্য কুমারী পূজা। দেবী পুরাণে কুমারী পূজার সুষ্পষ্ট উল্লেখ রয়েছে।
এ ব্যাপারে মিলন মন্দিরের পুরোহিত সন্তোষ ব্যানার্জি বলেন, সব স্ত্রী লোক ভগবতীর এক-একটি রূপ। শুদ্ধাত্মা কুমারীতে ভগবতীর বেশি প্রকাশ। কুমারী পূজার মাধ্যমে নারী জাতি হয়ে ওঠে পবিত্র ও মাতৃভাবাপন্ন। ১৯০১ সালে সনাতন ধর্মের অন্যতম প্রচারক স্বামী বিবেকানন্দ সর্ব প্রথম নয়জন কুমারী দিয়ে এ পূজার পুনঃপ্রচলন করেন। তখন থেকে প্রতি বছর দুর্গাপূজার অষ্টমীতে এ পূজার আয়োজন করে আসছে সনাতন ধর্মালম্বীরা। পূজার আগ পর্যন্ত এ পূজায় অংশ গ্রহনকারী কুমারীর পরিচয় গোপন রাখা হয়।
পূজা মন্ডপ কমিটির পক্ষে তপন কুমার সাহা জানান, মন্দিরে আগত সকল শিশুদের মধ্যে চিপস্ ও চকলেট বিতরণের ব্যতিক্রম আয়োজন করে মহা উৎসবে অষ্টমী পূজা পালন করা হয়। তিনি আরও বলেন, রবিবার ছিল দুর্গোৎসবের মহা সপ্তমী। বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা ও ধর্মীয় মর্যাদায় উদযাপিত হয়েছে মহা সপ্তমী। নবপত্রিকা স্থাপনের মধ্য দিয়ে মহাশক্তি আনন্দময়ীর পূজা শুরু করা হয়। মহা সপ্তমীতে ষোড়শ উপাচারে অর্থাৎ ষোলোটি উপাদানে দেবীর পূজা শুরু হয়। দুপুরের পর থেকে মণ্ডপগুলোতে ঢল নামে ভক্ত, অনুরাগী ও দর্শনার্থীদের। শুধু হিন্দু ধর্মালম্বীরাই নন, সব ধর্মের দর্শনার্থীরাই মণ্ডপে মণ্ডপে প্রতিমা দেখতে ভিড় জমান। পূজাকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা মেলায়ও ভিড় করেন তারা।
মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক রতন কুমার সাহা বলেন, প্রতি বছরের ন্যায় এবছরেও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সরকারের দায়িত্বপূর্ণ কর্মকর্তারা পূজা মণ্ডপ পরিদর্শন করেছেন। এছাড়াও উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ ও উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদের নেতারাও মন্দিরে এসে পূজার ভক্ত ও অনুরাগীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করছেন ও পূজার খোঁজ খবর নিচ্ছেন
উল্লাপাড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলাম জানান, থানাধীন ৮৭  টি দূর্গাপুজা সুষ্ঠভাবে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনা নেই।

রাজশাহীতে কুমারী পূজা সম্পন্ন

0

পান্না, রাজশাহী ব্যুরো :

শারোদিয়ার আজ মহাষ্টমী। শারদীয় দুর্গা পূজার সবচেয়ে আকর্ষণীয় এবং জাঁকজমকপূর্ণ দিন আজ। দেবীর সন্ধিপূজা এবং কুমারী পূজার মধ্য দিয়ে দিনটি পালন করছে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। দুর্গোৎসবের এই দিনে রাজশাহী মহানগরীতে পালিত হয়েছে কুমারী পূজা। সকাল থেকেই ভক্ত ও পূজারিদের উপস্থিতিতে  ভিড় দেখা যায় পূজা মন্ডপগুলোতে ।

সোমবার (৩ অক্টোবর) বেলা সাড়ে বারোটার দিকে মহানগরীর ত্রিনয়নী মন্দিরে কুমারী পূজা অনুষ্ঠিত হয়।

কুমারী পূজায় অংশ নিতে মহানগরীর কুমারী কন্যাদের ঢল নামে মন্দিরে। সকাল থেকেই কুমারীরা পূজা-অর্চনার জন্য অপেক্ষা করতে থাকে।
এ বছর কুমারী পূজায় দেবীর আসনে বসানো হয়েছে নগরীর সাগরপাড়া এলাকার মা ছন্দা সরকার ও বাবা স্বাগত দাসের আট বছরের কন্যা ইন্দুপ্রভা দাস তিতলিকে। পূজা শুরুর আগে তাকে স্নান করিয়ে নতুন কাপড় পরিয়ে নানা অলঙ্কার ও ফুলের মালা দিয়ে নিপুণভাবে সাজিয়ে দেবীর আসনে অধিষ্ঠিত করা হয়।
এর আগে মন্ত্রোচ্চারণ, ফুল ও বেলপাতার আশীর্বাদ পৌঁছে দেয়া হয় ভক্তদের কাছে। এরপর পূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। ভক্তদের উলুধ্বনি আর ধর্মপ্রাণ মানুষের বিনম্র শ্রদ্ধায় সম্পন্ন হয় কুমারী পূজা।

হিন্দু শাস্ত্রমতে, কুমারী পূজার উদ্ভব হয় কোলাসুরকে বধ করার মধ্য দিয়ে। বর্ণিত রয়েছে, কোলাসুর এক সময় স্বর্গ-মর্ত্য অধিকার করায় বাকি বিপন্ন দেবগণ মহাকালীর শরণাপন্ন হন। সে সব দেবতাদের আবেদনে সাড়া দিয়ে দেবী পুনর্জন্মে কুমারীরূপে কোলাসুরকে বধ করেন। এরপর থেকেই মর্ত্যে কুমারী পূজার প্রচলন শুরু হয়।
তিনি যেমন দুষ্টের দমন করেন, তেমনি মাতৃরূপে ভক্তের পালনও করেন। সেই ধারণাকে ধারণ করে কুমারী পূজার আবির্ভাব। কুমারী পূজায় সাত থেকে নয় বছরের কুমারীকে দেবী হিসেবে কল্পনা করে পূজা করা হয়। বয়সভেদে দেওয়া হয় ভিন্ন ভিন্ন নাম। ভক্তরা তার মাঝে খুঁজে পান দেবীরূপী মাকে। পূজা শেষে সবার মঙ্গল কামনা এবং পাপমুক্তির জন্য ভক্তরা দেবীর পায়ে শ্রদ্ধা জানান ফুল ও বেলপাতা নিবেদন করে।

কুমারী পূজার মাধ্যমে নারী জাতির প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করতে আযোজন করা হয় সন্ধিপূজারও। সন্ধিপূজা হলো মা দুর্গার কাছে অসুর বাহিনীর আত্মসমর্পণ।
ভক্তরা বলেন কুমারী পূজার মাধ্যমে সমাজে নারীদের সমর্মযাদা প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি দেশে শান্তিই একমাত্র প্রার্থনা তাদের।

উল্লেখ্য, ১৯০১ সালে স্বামী বিবেকানন্দ কলকাতার বেলুড় মাঠে ৯ কুমারীকে পূজা করেন তখন থেকে প্রতিবছর দূর্গোৎসবের অষ্টমী তিথিতে মহা ধুমধামে কুমারী পূজা প্রথা চলে আসছে।

আইসিটি বিভাগের পরবর্তী ভিশন একটি স্মার্ট প্রজন্ম তৈরি করা: জুনাইদ আহমেদ পলক

0

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য স্যামসাং আরঅ্যান্ডডি ইনস্টিটিউটের কোডিং কনটেস্ট ২০২২
[ঢাকা, ০৩ অক্টোবর, ২০২২] বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের প্রবলেম সলভিং (সমস্যা সমাধান) ও গবেষণা দক্ষতা বিকাশের চলমান প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য স্যামসাং আরঅ্যান্ডডি ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ (এসআরবিডি) তৃতীয়বারের মতো সফলভাবে কোডিং প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। বাংলাদেশের খ্যাতনামা ৬৫টি সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১ হাজার ৬০৮ জনেরও বেশি শিক্ষার্থী / প্রবলেম সলভার এ প্রতিযোগিতায় অংশ নেন।


প্রতিযোগিতাটি তিনটি ধাপে অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতার প্রথম রাউন্ড অনলাইনে চলতি বছরের ১৬ আগস্ট অনুষ্ঠিত হয়; যেখানে ১ হাজার ৬০৮ জন শিক্ষার্থী নিবন্ধন করেন। প্রথম রাউন্ড শেষে ৩৪৮ জন শিক্ষার্থী/ প্রবলেম সলভার দ্বিতীয় রাউন্ডের যাওয়ার সুযোগ পান, যা গত ২৩ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হয়।
দ্বিতীয় রাউন্ডের সেরা ৫০ জন প্রতিযোগীকে চূড়ান্ত রাউন্ডে অংশ নেয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়। প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত রাউন্ড এসআরবিডি এর ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত হয়। চূড়ান্ত রাউন্ডে ১০ জন সেরা প্রতিযোগীকে বিজয়ী হিসেবে নির্বাচিত করা হয়। এ প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেন বুয়েটের মোঃ সাব্বির রহমান।


বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেয়ার আগে এসআরবিডি এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর উনমো কু, বেসিসের সভাপতি রাসেল টি আহমেদ এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক মূল্যবান বক্তব্য প্রদান করেন। এ ধরনের প্রতিযোগিতা সফলভাবে আয়োজনের জন্য সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে অনুষ্ঠানে উনমো কু বলেন, “বাংলাদেশি তরুণ প্রকৌশলী ও প্রবলেম সলভারদের বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে, যদি তারা তাদের দক্ষতা চর্চার জন্য এসআরবিডি’র মতো ইনস্টিটিউটগুলোর সঠিক পথনির্দেশনা পেয়ে থাকে তাহলে তারা বৈশ্বিক পরিসরেও তাদের মেধার নৈপুণ্য দেখাতে পারবে।” অনুষ্ঠানে রাসেল টি আহমেদ তার বক্তব্যে বলেন, “সামনের দিনগুলোতে এ ধরনের প্রতিযোগিতা আয়োজনের মাধ্যমে অনেক মেধাবী বেরিয়ে আসবে, যা সর্বোপরি বাংলাদেশকে ফোরআইআর এর লক্ষ্য অর্জনে সাহায্য করবে।”
অংশগ্রহণকারীদের মাঝে ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপকল্পের বিষয়গুলো তুলে ধরে অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, “বাংলাদেশে প্রবলেম সলভিং কালচার (সমস্যা সমাধানের সংস্কৃতি) তৈরিতে যারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে তাদের মধ্যে এসআরবিডি অন্যতম। ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপকল্পের যাত্রা ও এসআরবিডি’র উদ্বোধন একইসময়ে অর্থাৎ ২০১০ সালে হয়। আজ এসআরবিডি দেশের অন্যতম সর্ববৃহৎ উদ্ভাবনী ইনস্টিটিউট ও মেধা বিকাশের প্রাণকেন্দ্রে পরিণত হয়েছে জেনে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। এসআরবিডি বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্মের বিকাশের চলমান প্রক্রিয়াকে অব্যাহত রাখবে বলে আমি প্রত্যাশা করি; যেনো তারা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে নিজেদের বিকশিত করে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে পারে।”
এরপর, ১০ জন বিজয়ীর হাতে পুরস্কার হিসেবে মোট ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা তুলে দেয়া হয়। এর মাঝে প্রতিযোগিতার চ্যাম্পিয়ন বুয়েটের মোঃ সাব্বির রহমান এর হাতে ৫০ হাজার টাকা, ফার্স্ট রানার্স-আপ হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অয়ন শাহরিয়ার এর হাতে ৩০ হাজার টাকা ও দ্বিতীয় রানার্স-আপ বুয়েটের ইফতেখার হাকিম কাওসার এর হাতে ২০ হাজার টাকা তুলে দেয়া হয়।

র‌্যাব-১২’র অভিযানে সিরাজগঞ্জ সদরে ১০০(একশত) গ্রাম হেরোইনসহ ০১ জন নারী মাদক ব্যবসায়ী আটক।

0

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকেই দেশের সার্বিক আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সমুন্নত রাখার লক্ষ্যে সব ধরণের অপরাধীকে আইনের আওতায় নিয়ে আসার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। জঙ্গী, সন্ত্রাসী, সংঘবদ্ধ অপরাধী, ছিনতাইকারী, জুয়ারি, মাদক ব্যবসায়ী, খুন, এবং অপহরণসহ বিভিন্ন চাঞ্চল্যকর মামলার আসামী গ্রেফতারে র‌্যাব নিয়মিত অভিযান চালিয়ে আসছে।

এর ধারাবাহিকতায় ২৮/০৯/২০২২ তারিখ দুপুর ০১.৪০ ঘটিকায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১২ এর স্পেশাল কোম্পানীর একটি চৌকষ আভিযানিক দল সিরাজগঞ্জ জেলার সদর থানাধীন সদানন্দপুর গ্রামের কড্ডার মোড়রস্থ জনৈক মোঃ সুমন বাবু এর চায়ের দোকানের সামনে পাকা রাস্তার উপরএক মাদক বিরোধী অভিযান চালিয়ে ১০০(একশত) গ্রাম হেরোইনসহ ০১ জন নারী মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে।গ্রেফতারকৃত আসামীঃ মোছাঃ শান্তা খাতুন(২১), পিতা-মোঃ আঃ কাদের, সাং-শ্রী মোন্তপুর গোদাগাড়ী পৌরসভা, থানা-গোদাগাড়ী, জেলা-রাজশাহী।গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করত উদ্ধারকৃত আলামতসহ তাহাকে সিরাজগঞ্জ জেলার সদর থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, এই মাদক ব্যবসায়ী দীর্ঘদিন যাবত আইন প্রয়োগকারী সংস্থার চোখ ফাঁকি দিয়ে সিরাজগঞ্জ জেলার বিভিন্ন এলাকায় অবৈধ নেশাজাতীয় মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয় করে আসছিল।

র‌্যাব-১২’র অভিযানে সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা ও সদরে ৬১(একষট্টি) কেজি গাঁজা এবং ৪৭ বোতল ফেন্সিডিলসহ ০৪ জন মাদক ব্যবসায়ী আটক

0

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকেই দেশের সার্বিক আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সমুন্নত রাখার লক্ষ্যে সব ধরণের অপরাধীকে আইনের আওতায় নিয়ে আসার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। জঙ্গী, সন্ত্রাসী, সংঘবদ্ধ অপরাধী, ছিনতাইকারী, জুয়ারি, মাদক ব্যবসায়ী, খুন, এবং অপহরণসহ বিভিন্ন চাঞ্চল্যকর মামলার আসামী গ্রেফতারে র‌্যাব নিয়মিত অভিযান চালিয়ে আসছে।

১। ২৫/০৯/২০২২ তারিখ রাত ০৯.২৫ ঘটিকায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১২’র সদর এবং স্পেশাল কোম্পানীর চৌকষ আভিযানিক দল সিরাজগঞ্জ জেলার সলঙ্গা থানাধীন, দবিরগঞ্জ গ্রামের দবিরগঞ্জ বাজারস্থ চেয়ারম্যান সুপার মার্কেটের মেসাস্ করিম মন্ডল এন্টার প্রাইজ এর সামনে ঢাকা টু রাজশাহী গামী মহাসড়কের উপরে একটি মাদক বিরোধী অভিযান চালিয়ে ৬১(একষট্টি) কেজি গাঁজাসহ ০৩ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে। এসময় মাদক ক্রয়-বিক্রয় এর কাজে ব্যবহৃত ০১ টি মাহিন্দ্রা পিকআপ জব্দ করা হয়।গ্রেফতারকৃত আসামীঃ ১। তামিম ইকবাল নাসির(২২), পিতা-মোঃ আবুল বাসার, সাং-চিকনাগুল কোহাইগড় প্রথম খন্ড, থানা-জৈন্তাপুর, ২। মোঃ ফকর চৌধুরী(৪২), পিতা-মৃত মিজাজুর রহমান চৌধুরী, সাং-আমলসিধ, থানা-জকিগঞ্জ, উভয় জেলা-সিলেট, ৩। মোঃ রাকিব হোসেন(২০), পিতা-মোঃ আব্দুল হক পাটোয়ারি, সাং-দক্ষিণ বালিয়া, থানা-চাঁদপুর, জেলা-চাঁদপুর।

২। ২৬/০৯/২০২২ তারিখ রাত ০১.৩০ ঘটিকায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১২’র স্পেশাল কোম্পানীর চৌকষ আভিযানিক দল সিরাজগঞ্জ জেলার সদর থানাধীন সায়দাবাদ ইউনিয়নের মুলিবাড়ী গ্রামস্থ মুলিবাড়ী চেক পোষ্টের সামনে সিরাজগঞ্জ হইতে ঢাকা গামী মহাসড়কের উপর একটি মাদক বিরোধী অভিযান চালিয়ে ৪৭(সাতচল্লিশ) বোতল ফেন্সিডিলসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে।গ্রেফতারকৃত আসামীঃ মোঃ জাকির হোসেন(৩২), পিতা-মৃত নূরুল ইসলাম, সাং-উত্তর গাঁও, থানা-রানী শংকৈল, জেলা-ঠাকুরগাঁও।গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করত উদ্ধারকৃত আলামতসহ তাহাদেরকে সিরাজগঞ্জ জেলার সলঙ্গা ও সদর থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, এই মাদক ব্যবসায়ীরা দীর্ঘদিন যাবত আইন প্রয়োগকারী সংস্থার চোখ ফাঁকি দিয়ে সিরাজগঞ্জ জেলাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় অবৈধ নেশাজাতীয় মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয় করে আসছিল।

গনধর্ণন  মামলার আসামী  গ্রেফতার

0

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

১। আপনারা অবগত আছেন যে, র‌্যাব এর নিয়মিত অভিযানের অংশ হিসেবে র‌্যাব-৫ বিভিন্ন সময় মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে মাদক উদ্ধার ও মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতারসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন মামলার আসামী গ্রেফতার  করে থাকে। র‌্যাব-৫, সদর কোম্পানী গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারে যে, পঞ্চগড় জেলার বোদা থানার গনধর্ষন মামলার একজন এজাহারনামীয় আসামী মামলা রুজুর পর থেকেই পলাতক হয়ে রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী থানা এলাকায় আত্মগোপন করে আছে। পরবর্তীতে র‌্যাব-৫ এর সদর কোম্পানীর একটি আভিযানিক দল গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে অদ্য ২৪/০৯/২২ ইং তারিখ অভিযান পরিচালনা করে গোদাগাড়ী থানার বাইপুর চব্বিশনগর হাশেম রাইসমিল থেকে আত্মগোপনে থাকা এজাহারনামীয় আসামী মোঃ আশরাফুল ইসলাম (৩০) পিতা- মোঃ মকবুল হোসেন, সাং-প্রসাদ খাওয়া, থানা- বোদা- জেলা- পঞ্চগড়কে গ্রেফতার করে।

২। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের উক্ত আসামী উক্ত ধর্ষন মামলায় তার জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে  ।

৩। গ্রেফতারকৃত উক্ত আসামীকে আইনগত  ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য বোদা থানায়  হস্তান্তর করার জন্য রওনা করা হয়েছে।

 

সিপিএসসি, র‌্যাব-৫, রাজশাহী কর্তৃক সক্রীয় মাদক ব্যবসায়ীদ্বয়কে ০২ কোটি ৬০ লক্ষ টাকা সমমূল্যের ০২ কেজি ৬০০ গ্রাম হেরোইনসহ গ্রেফতার

0

বিশেষ প্রেস বিজ্ঞপ্তি

অদ্য ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ তারিখ ১৭.৫৫ ঘটিকায় রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী থানাধীন মাদারপুর গ্রামস্থ এলাকায় অপারেশন পরিচালনা করে (১) হেরোইন-২.৬ কেজি, (২) দেশী মদ-১৫ লিটার, (৩) মোবাইল-০১টি, (৪) সীমকার্ড-০১টি উদ্ধার করেন এবং আসামী ১। মোছাঃ আরজান বেগম (৬৪), স্বামী-সৈইবুর রহমান (মৃত স্বামী-খোকন), ২। মোঃ মাহাবুর (৩৯), পিতাঃ মৃত খোকন, উভয় সাং-মাদারপুর, থানা-গোদাগাড়ী, জেলা-রাজশাহীদ্বয়‘কে গ্রেফতার করেন।


ঘটনার বিবরণে প্রকাশঃ- দীর্ঘদিন যাবৎ একটি মাদক চোরাচালান চক্র আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে সীমান্তবর্তী এলাকায় পার্শ্ববর্তী দেশ হতে অবৈধ মাদকদ্রব্য চোরাচালান করে রাজশাহী হতে রাজধানীসহ দেশের সকল প্রান্তে মাদক সরবরাহ করে আসছিল। মাদকের সন্ধানে র‌্যাব-৫ তাদের গোয়েন্দা নজরদারি সার্বক্ষণিকভাবে পরিচালনা করে আসছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে দীর্ঘদিনের গোয়েন্দা কার্যক্রমের মাধ্যমে চক্রটির সন্ধান পাওয়ার পর গোয়েন্দা দল তাদের নজরদারি করতে থাকে। অতঃপর ইং-২৪/০৯/২০২২ তারিখ গোয়েন্দা তথ্যমতে জানতে পারে যে, রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী থানাধীন মাদারপুর গ্রামস্থ ধৃত ১নং আসামী মোছাঃ আরজান (৬৪), স্বামী-সৈইবুর রহমান এর বসত বাড়ীতে অবৈধ মাদকদ্রব্য হেরোইন মজুদ রেখে বিক্রয় হচ্ছে। বিষয়টি জানা মাত্রই ইং ২৪/০৯/২০২২ তারিখ ১৭.৫৫ ঘটিকায় রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী থানাধীন মাদারপুর গ্রামস্থ ধৃত ১নং আসামী মোছাঃ আরজান (৬৪), বর্তমান স্বামী-সৈইবুর রহমান (মৃতঃ স¦ামীঃ খোকন) এর বসতবাড়ীতে পৌঁছাইয়া বাড়ীর চতুরদিক ঘেরাও কালে ০৩ জন ব্যক্তি ঘরের দরজা খুলে পালানোর চেষ্টাকালে ০২ জন ব্যক্তিকে হাতে নাতে আটক করে। অপর ০১জন ব্যাক্তি পিছনের দরজা খুলিয়া পালাইয়া যায়।


জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে ধৃত আসামীদ্বয় হেরোইন মজুদের কথা স্বীকার করে এবং তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে আসামীদ্বয়ের একতলা ছাদ বিশিষ্ট পাঁকা বসত বাড়ীর ভিতরে উত্তর দূয়ারী পূর্ব রুমে (ধৃত ০১নং আসামীর শয়ন কক্ষ) থাকা ড্রেসিং টেবিল এর ড্রয়ারের ভিতরে অভিনব কায়দায় লুকায়ে ০১টি সাদা রংয়ের প্লাস্টিকের বাজারের ব্যাগের ভিতরে রক্ষিত ২৬টি ঘরষধপযধষ ঞঊঅ এড়ষফ নামীয় চায়ের প্যাকেটের ভিতরে প্যাকেটজাত অবস্থায় ০২ কেজি ৬০০ গ্রাম হেরোইন এবং উক্ত ড্রেসিং টেবিলের পিছনে লুকিয়ে রাখা ১৫ লিটার চোলাই মদ উদ্ধার করা হয়। উক্ত হেরোইন চায়ের প্যাকেটে চায়ের পরিবর্তে হেরোইন প্যাকেটজাত করে অভিনব কায়দায় মাদক ব্যবসায়ীর নিকটে বিক্রয় করে।
আসামীর বিরুদ্ধে রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

র‌্যাব পরিচয়ে চাঁদাবাজী মামলার আসামী  গ্রেফতার

0

প্রেস বিজ্ঞপ্তি 

১। আপনারা অবগত আছেন যে, র‌্যাব এর নিয়মিত অভিযানের অংশ হিসেবে র‌্যাব-৫ বিভিন্ন সময় মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে মাদক উদ্ধার ও মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতারসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন মামলার আসামী গ্রেফতার  করে থাকে। র‌্যাব-৫, সদর কোম্পানী  চারঘাট থানা মারফত জানতে পারে যে, গত ২১/০৯/২২ ইং তারিখ রাত্রী ১১.০০ ঘটিকার দিকে জনৈক মোঃ ইব্রাহিম আলীর বাসায় কয়েকজন ব্যক্তি উপস্থিত হয়ে র‌্যাব পরিচয় দিয়ে তার কাছে ৫০০০০০/- টাকা চাঁদা দাবী করে এবং বিভিন্ন রকম ভয়ভীতি দেখিয়ে ২০০০০০/- টাকা চাঁদা গ্রহন করে। পরবর্তীতে উক্ত ভুক্তভোগী  ব্যক্তি উক্ত ভুয়া র‌্যাব পরিচয়দানকারী ব্যক্তিদের নামে চারঘাট থানায় একটি নিয়মিত মামলা দায়ের করেন। এরই প্রেক্ষিতে র‌্যাব-৫ সদর কোম্পানী ২২/০৫/২২ ইং রাত্রী বেলা অভিযান পরিচালনা করে চারঘাট থানা এলাকার কাকড়ামারী বাজার থেকে উক্ত মামলার এজাহারনামীয় আসামী মোঃ তারিক হোসেন (৩৪) পিতা- নজরুল ইসলাম, সাং-মেরামতপুর, থানা- চারঘাট, জেলা- রাজশাহীকে গ্রেফতার করে।

২। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের উক্ত আসামী র‌্যাব পরিচয়ে চাঁদাবাজীর কথা স্বীকার করে  ।

৩। গ্রেফতারকৃত উক্ত আসামীকে আইনগত  ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য চারঘাট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

 

৩৮০ (তিনশত আশি) পিচ অবৈধ নেশাজাতীয় মাদকদ্রব্য ইয়াবাসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

0
  • প্রেস রিলিজ
  • র‌্যাব-১২, সিপিসি-২, পাবনা:   অদ্য ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২ তারিখ ১৬.০৫ ঘটিকায় সময় র‌্যাব-১২, সিপিসি-২ পাবনা, র‌্যাবের একটি বিশেষ আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভারপ্রাপ্ত কোম্পানি কমান্ডার সিনিঃ এএসপি কিশোর রায় এর নেতৃত্বে  ঘটনাস্থলঃ ‘পাবনা জেলার পাবনা থানাধীন মহাদেবপুর সাকিনস্থ মহাদেবপুর পূর্বপাড়া জামে মসজিদ মোড়স্থ বটগাছের নিচে পাঁকা রাস্তার উপর’ অভিযান পরিচালনা করে মাদক ব্যবসায়ী ধৃত আসামী মোঃ রাজীব প্রামানিক @ রাজু (২৪), পিতা- মোঃ ইয়াকুব প্রামাণিক, সাং-কাথুলিয়া, থানা-পাবনা, জেলা-পাবনা’কে গ্রেফতার করে। গ্রেফতার পূর্বক ধৃত আসামীর নিকট হতে ৩৮০ (তিনশত আশি) পিচ অবৈধ নেশাজাতীয় মাদকদ্রব্য ইয়াবা, মোবাইল ০১টি, সিম ০১টি উদ্ধার করে।
  • ধৃত আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, সে দীর্ঘদিন যাবত অবৈধ নেশাজাতীয় মাদকদ্রব্য ইয়াবা নিজ হেফাজতে রেখে নিজ এলাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় বিক্রয় করে আসছিল  ধৃত আসামীর বিরুদ্ধে পাবনা জেলার পাবনা থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে ।

 

সর্বশেষ আপডেট