লালপুর থেকে-বাঘায় এসে সরকারি জমিতে ঘর তুলছে ৯ মামলার আসামী !

0
447

বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি:
নাটোর জেলার লালপুর উপজেলার নওশারা সুলতান পুর গ্রাম থেকে রাজশাহীর বাঘা উপজেলার খানপুর এলাকায় এসে সরকারি জমির উপর ঘর তুলছেন সন্ত্রাসী আলমঙ্গীর হোসেন। তিনি এক সময়ের বহুল আলোচিত চরাঞ্চলের ত্রাস-পান্না বাহিনীর সদস্য ছিলেন। তার নামে বাঘা,কুষ্টিয়া এবং লালপুর থানায় ৯ টি মামলা রয়েছে।
বাঘার খানপুর এলাকার ৭ নং ইউপি সদস্য রাসেল হোসেন সহ অনেকেই জানান, লালপুর উপজেলার নওশারা সুলতানপুর গ্রামের আবের আলীর ছেলে আলমঙ্গীর হোসেন। তিনি বাঘা, লালপুর এবং দৌলতপুর উপজেলার পদ্মার চরাঞ্চল এলাকার এক সময়ের আলোচিত সন্ত্রাসী পান্না বাহীনির সদস্য এবং মাদক ব্যবসায়ী।
তাকে করে এলাকার মানুষ ভীত-তটস্থ। এ কারনে পার্শ্ববর্তী লালপুর এলাকা থেকে বাঘা এলাকায় এসে নদী তীরবর্তী স্থানে ঘর নির্মান কাজ শুরু করলেও ভয়ে কেউ মুখ খুলছেনা। তবে স্থানীয় গড়গড়ি ইউপি চেয়ারম্যানের মাধ্যমে বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানানো হয়েছে বলে অনেকে উল্লেখ করেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম বলেন,
আলমঙ্গীর একজন সন্ত্রসী এটা সবাই জানে। তার নামে একাধিক মামলা থাকার বিষয়টিও সঠিক। আমি সরকারি জমি দখল করে ঘর নির্মানের বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবগত করেছি।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে আলমঙ্গীর হোসেন বলেন, আমি ৬২ সালের রেকড ধরে সাদের আলীর নিকট থেকে জমি কিনে ঘর করছি। আমার নামে এক সময় অনেক মামলা ছিল। তবে আমার ওস্তাদ পুলিশের ক্রাস ফায়ারে মারা যাবার পর আমি ভালো হয়ে গেছি।
এ বিষয়ে বাঘা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পাপিয়া সুলতানা বলেন, আলমঙ্গীর হোসেন ৬২ সালের রেকড ধরে যে জমিটি ক্রয় করার দাবি করছেন সেটি ৭৪ সালের রেকডে এসে সরকারি খাস ক্ষতিয়ান ভুক্ত হয়েছে। তাকে ইতোমধ্যে ঘর উঠাতে বারণ করা হয়েছে। এর পরেও যদি সে ঘর তোলার চেষ্টা করে তবে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হেব।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে